সয়ার তৈরি খাবার কতটা স্বাস্থ্যকর

0

আমাদের প্রাত্যহিক খাবারের তালিকায় নানা আয়োজন থাকে। আর সে তালিকায় সয়ার তৈরি খাবার কতটা স্বাস্থ্যকর, তা কি আমাদের জানা আছে? সয়ার তেল জনপ্রিয় হলেও এর তৈরি চিজ, দুধ, বাদাম, ময়দা ইত্যাদিতেও আছে নানা উপকারিতা। সয়া বা সয়াবিনের সেসব উপকারিতা নিয়ে আজকের আয়োজন

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফুড অ্যান্ড বার্ন অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের এক গবেষণায় জানানো হয়েছে, সয়াতে থাকা প্রোটিন রক্তে কোলেস্টেরল বৃদ্ধি রোধ করে, যা হূদযন্ত্রের রোগ নিয়ন্ত্রণে বেশ উপকারী। স্বল্প প্রোটিনসমৃদ্ধ সয়া থেকে উৎপাদিত তেল, দুধ, চিজ ইত্যাদি হার্ট অ্যাটাক বা স্ট্রোকের ঝুঁকি থাকে, তা অনেকাংশে রোধ করে। এছাড়া যারা শরীরের মেদ চর্বি নিয়ন্ত্রণে হিমশিম খাচ্ছেন, তাদের জন্য সয়ার বিকল্প খুব কমই আছে।

স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে সয়া খুব উপকারী, সেটা যেমন বলা যায় না আবার একেবারে উড়িয়েও দেয়া যায় না। আমেরিকান ইনস্টিটিউট অব ক্যান্সার রিসার্চ তাদের এক গবেষণায় বলেছে, যে জিনের কারণে স্তন ক্যান্সার হওয়ার আশঙ্কা থাকে, সয়া সে জিনকে শরীরের বিভিন্ন কোষে পৌঁছতে বাধা দেয়। ছোট অবস্থা থেকেই সয়ার তৈরি নানা খাবার গ্রহণ করলে স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি অনেকটাই কমে যায়। বয়ঃসন্ধিকাল থেকে সয়ার তৈরি তেল, চিজ, দুধ, ময়দা ইত্যাদি ভবিষ্যতে এ রোগের ঝুঁকি অনেকাংশেই কমায়। নারীদের পাশাপাশি আজকাল বয়সকালে পুরুষদের প্রোস্টেট ক্যান্সার একটি সাধারণ বিষয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রোস্টেট ক্যান্সারের ক্ষেত্রেও বিশেষজ্ঞরা একই রকম মত দিয়েছেন, অর্থাৎ ছোট থেকে সয়ায় তৈরি খাবার খেলে বয়সকালে এ রোগ প্রতিরোধ করা যায়।

শরীরের ওজন নিয়ন্ত্রণের জন্য সয়া তেল বেশ উপকারী। কেননা সয়ায় থাকা স্বল্প ফ্যাট শরীরে অতিরিক্ত মেদ জমতে দেয় না। কানাডার হেলথ গাইড খাদ্য তালিকায় সয়ার অন্তর্ভুক্তির কথা জানিয়ে বলেছে ‘হেলথ ডায়েটের’ জন্য সয়ার বিকল্প খুব একটা নেই। হেলথ গাইড আরো বলেছে দিনের খাদ্য তালিকায় সয়ার তৈরি অন্তত দুটি খাবার যোগ করা উচিত। এছাড়া সয়ায় বিদ্যমান মিনারেল ক্যালসিয়াম এবং আয়রন হাড়ের ক্ষয়রোধ করে এবং দাঁতের মাড়ি মজবুতেও এর উপকারিতা অনেক। বিশেষ করে সয়াতে থাকা আয়রন শরীরের টিস্যু এবং কোষগুলোয় অক্সিজেন সরবরাহ করে, যা মস্তিষ্কের কার্যকারিতা বৃদ্ধির কাজও করে থাকে।

Share.
মন্তব্য লিখুনঃ

 

',